কমলার খোসার উপকারিতা Leave a comment

রূপচর্চায় কমলার ব্যবহার ও কমলা খাওয়ার উপকারিতা নিয়ে ইতিমধ্যেই ব্লগ লিখেছি। প্রচুর পরিমান ভিটামিন-সি এ ভরপুর কমলা দেহের অাভ্যন্তরিণ ও বাহ্যিক উভয় দিকের জন্যই খুব উপকারি ও কার্যকরি এই বিষয়গুলো জেনেছি। কিন্তুু কমলার খোসা কতটা উপকারি তা ক’জনই বা জানি! এতক্ষণে আপনারা সকলেই বুঝতে পেরেছেন আমার আজকের ব্লগটি কমলালেবুর খোসার উপকারিতা নিয়ে।

ত্বকের নানা সমস্যা সমাধানে কমলার খোসার কোন জুড়ি নেই। কমলার খোসা গুড়ো করে খাওয়া কিংবা ফেসিয়ালের ক্ষেত্রে কমলার খোসার গুড়ো বেশ উপকারি। কমলালেবু খাওয়ার পর আমরা সাধারণত এর খোসা ফেলে দেই কিন্তুু আমরা এর ব্যবহার বিধি যদি সঠিক ভাবে জানতাম তবে তা ফেলে না দিয়ে আমরা এর যথাযথ ব্যবহার করতাম। 

ত্বকের যত্নে কমলার খোসা প্রাচীনকাল থেকেই ব্যবহার হচ্ছে। এটি কমনীয়তা রক্ষা করে। ত্বকে তেলের ভারসাম্য রক্ষা করে এবং ত্বককে করে তোলে মসৃণ। তাই ত্বককে সুন্দর রাখতে আমরা কমলার খোসা ব্যবহার করতে পারি।

একটি কমলার খোসা পানিতে ভালভাবে সেদ্ধ করে তা রেফ্রিজারেটরে ঠান্ডা করে মুখ ধোয়ার আগে ব্যবহার করুন। এতে ব্রণের সমস্যা কেটে যাবে।

রান্নার সু-ঘ্রাণ বৃদ্ধিতে কমলা লেবুর খোসা শুকিয়ে ব্যবহার করতে পারি। এতে রান্নার স্বাদ বৃদ্ধি পাবে এবং ভিটামিন সি এর অভাব ও পূরণ হবে। এছাড়া কমলার খোসা মিহি কুচি করে সালাদ কিংবা খাবার ডেকোরেশনের কাজে ব্যবহার করতে পারি। এতে করে খাবারে যেমন বাড়তি স্বাদ যুক্ত হবে এবং খাবার দেখতে হবে একটু অন্য রকম।

শুকনো কমলার খোসা প্রাকৃতিক স্কার্বার হিসেবে কাজ করে। এটি মুখের ব্লাক হেডস বা হোয়াইট হেডস দূর করতে চমৎকার ভাবে কার্যকরি।

সুতরাং কমলা খাবার পর খোসাগুলো ফেলে না দিয়ে আমরা উপরে বর্ণিত কাজগুলোতে ব্যবহার করতে পারি।

লিখেছেন :-
Musarrat Rahman Achal
Head Of Marketing
Nandonik Online Shopping
Spread the love
  •  
  •   
  •   
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *